Slideshows

http://www.bostonbanglanews.com/index.php/components/components/com_gk3_photoslide/thumbs_big/605744Finding_Immigrant____SaKiL___0.jpg

কুইন্স ফ্যামিলি কোর্টে অভিবাসী

হাকিকুল ইসলাম খোকন/বাপ্‌স নিউজ/প্রবাসী নিউজ ঃ বষ্টনবাংলা নিউজ ঃ দ্যা ইন্টারফেইস সেন্টার অব নিউইয়র্ক ও আইনী সহায়তা সংগঠন নিউইয়র্ক এর উদ্যোগে গত ২৪ অক্টোবর বৃহস্পতিবার সকাল ৯ See details

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

বাংলাদেশের খবর

জামালপুরে বন্যার্তদের মাঝে জেএসডি’র ত্রাণ বিতরন বন্যার্ত মানুষের তুলনায় সরকারের ত্রাণ সাহয্য খুবই অপ্রতুল ....আ স ম আবদুর রব

সোমবার, ২৮ আগস্ট ২০১৭

বাপ্ নিউজ : জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল- জেএসডি সভাপতি জনাব আ স ম আবদুর রব বলেছেন, বন্যার্ত মানুষের তুলনায় সরকারের ত্রাণ সাহায্য খুবই অপ্রতুল। বহু এলাকার বন্যার্ত মানুষ এখনো কোন ত্রাণ সাহায্য পায়নি। তারা ক্ষুধার্ত ও পিপাশার্ত জীবন যাপন করছে। নানাবিধ অসুখ বিসুকে ভুগছে। সরকারের মন্ত্রীরা ত্রাণ সাহায্যের নামে হেলিকপ্টারে ঘুরে যে টাকা ব্যয় করছে তা বন্যার্তদের মাঝে দিলে তাদের অবস্থার আরেকটু উন্নতি হতে পারতো। আমরা গরীব মানুষের দল। আমাদের নেতা কর্মীরা একবেলা না খেয়ে সেই টাকা দিয়ে সামান্য ত্রাণ নিয়ে বন্যার্তদের প্রতি সহানুভুতি জানাতে এসেছি। আপনাদের জানাতে এসেছি, দেশে জনগণের নির্বাচিত সরকার থাকলেও আপনাদের এ দুরাবস্থায় পড়তে হতোনা। আজকের বন্যার পানি শুধু বৃষ্টির পানি নয়, ভারত শুস্ক মওসুমে পানি বন্ধ করে দিয়ে আমাদের ফসলাদি পুড়িয়ে মারে, আর বর্ষাকালে বাঁধের সকল গেট খুলে দিয়ে আমাদেরকে ডুবিয়ে মারে। একটি গণভিত্তি সম্পন্ন সরকারই পারে এ বিষয়টি ভারতের সাথে ফয়সালা করতে। এ বিষয়ে আপনাদের সচেতন থাকতে হবে। জনাব রব বন্যার্ত এলাকার বকেয়া সকল কৃষিঋণ মওকুফ, নতুন আবাদের জন্য বিনাসুদে ঋণ প্রদান ও পরবর্তী ফসল না ওঠা পর্যন্ত রেশনিং ব্যবস্থা চালু করার দাবী জানান।

জেএসডি সাধারন সম্পাদক জনাব আবদুল মালেক রতন বলেন, দেশের নদ-নদী, বাড়ী-ঘর ও জমিতে বন্যা, আর ষষ্টদশ সংশোধনী বাতিল নিয়ে রাজনীতিতে খরা চলছে। এ অবস্থায় গদি রক্ষা ছাড়া বানভাসি মানুষের পক্ষে দাড়ানোর মানসিকতা সরকারের নেই।

আজ দুপুর ১২ টা থেকে জামালপুরে সদর উপজেলার তিপপালা ইউনিয়নের কামাল খান হাট ফাজিল মাদ্রাসা মাঠ, মেস্টা ইউনিয়নের হাজীপুর আলহাজ¦ জয়নুল আবেদীন দাখিল মাদ্রাসা মাঠ ও মেলান্দহ উপজেলার মুক্তি সংগ্রাম যাদুঘর প্রাঙ্গনে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরন শেষে সাংবাদিক ও সুধীজনের সাথে আলাপকালে নেতৃবৃন্দ এ সকল কথা বলেন। এ সময়ে উপস্থিত ছিলেন জেএসডি’র কেন্দ্রীয় ত্রাণ কমিটির আহবায়ক ও দলের সহ সভাপতি মিসেস তানিয়া রব, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক জনাব শহীদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপন, সাংগঠনিক সম্পাদক কামাল উদ্দিন পাটোয়ারী, এ্যাড. সৈয়দ বেলায়েত হোসেন বেলাল, জামালপুর জেলা জেএসডি’র সভাপতি জনাব আমির উদ্দিন, সাধারন সম্পাদক এ্যাড. তাজ উদ্দিন সবুজসহ অন্যান্য কেন্দ্রীয় ও জেলা নেতৃবৃন্দ।


সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনেই শ্রমিক শ্রেনী গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করেছে .........আ স ম আবদুর রব

শুক্রবার, ২৮ জুলাই ২০১৭

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক জোট এর উদ্যোগে ‘বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে শ্রমিক শ্রেনীর করনীয়’ শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত
বাপ্ নিউজ : জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডি সভাপতি জনাব আ স ম আবদুর রব আজ বিকেল ৪ টায় জাতীয় সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক জোট আয়োজিত  ‘বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে শ্রমিক শ্রেনীর করনীয়’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যদানকালে বলেছেন, সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনেই শ্রমিক শ্রেনী গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করেছে। মহান মুক্তিযুদ্ধেও শ্রমিকদের ভূমিকা অবিস্মরনীয়। আজকে দেশে গণতন্ত্রের নামে যে স্বৈর শাসন চলছে, চলছে নির্বাচনের নামে প্রহসন। এ অবস্থা থেকে উত্তরনের জন্যও শ্রমিক শ্রেনীকে এগিয়ে আসতে হবে। জনাব রব সকল শিল্প-কল-কারখানায় অবাধ ট্রেড ইউনিয়ন অধিকার এবং এ সকল প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজমেন্টে শ্রমিক-কর্মচারীদের অংশীদারিত্বের দাবী জানান। তিনি বলেন, সরকার বলছে দেশে উন্নয়নের জোয়ার বইছে অথচ আমাদের রপ্তানী দিন দিন কমছে, কমছে কর্ম সংস্থানের হার। এ পরিস্থিতি থেকে উত্তরনের জন্যও রাজনৈতিক আন্দোলনের সাথে শ্রমিক শ্রেনীকে ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করতে হবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে জেএসডি সাধারন সম্পাদক জনাব আবদুল মালেক রতন বলেন, দেশে যে লক্ষ লক্ষ কোটি টাকা রাজস্ব আদায় হয় তা শ্রমিক-কৃষক ও মধ্যবিত্ত শ্রেনীই প্রদান করে। ধনিক শ্রেনী ট্যাক্স এর নামে যা দেয় তা শ্রমিক-কৃষক, মধ্যবিত্ত শ্রেনীর কাছ থেকে দ্বিগুন হারে আদায় করে নেয়। অথচ শ্রমিকদের কল্যানে সে টাকা দেয়া হয়না। এ অবস্থা পরিবর্তনের জন্য দেশের সকল পর্যায়ের স্থানীয় সরকার ও পার্লামেন্টে শ্রমিকদের প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করতে হবে।

আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন  বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী ( বীর উত্তম), জনাব মাহমুদুর রহমান মান্না, জনাব আবদুল মালেক রতন, এস এম আকরাম, এ্যাড. সুব্রত চৌধুরী, জনাব মাহি বি চৌধুরী, জনাব মোস্তফা আমিনী।

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক জোটের   ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জনাব এয়ার আহম্মেদ এর সভাপতিত্বে  ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক জোটের সাধারন সম্পাদক জনাব মোশারফ হোসেনের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য রাখেন জেএসডি নেতা  জনাব এম এ গোফরান, জনাব আতাউল করিম ফারুক, জনাব মো: সিরাজ মিয়া, মিসেস তানিয়া রব, জনাব শহীদ উদ্দীন মাহমুদ স্বপন, জনাব কামাল উদ্দীন পাটোয়ারী, জনাব আবদুর রাজ্জাক রাজা, জনাব আবদুর রাজ্জাক রাজা, এস এম সামসুল আলম নিক্সন। শ্রমিক নেতা জনাব নোমানুজ্জামান, জনাব আবুল হোসেন মিয়া, জনাব আবদুল আউয়াল, জনাব এবিএম জামাল উদ্দীন, এ্যাড. নাজিম উদ্দীন, জনাব গাজী আলম, জনাব বেলাল হোসেন, জনাব বদরুদ্দোজা, জনাব আবদুস সাত্তার প্রমুখ।


সমুদ্রজলে পা ভিজিয়ে উচ্ছ্বসিত প্রধানমন্ত্রী

শনিবার, ০৬ মে ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন:আয়েশা আকতার রুবী,বাপসনিঊজ:সমুদ্রতীরে যাবেন আর জলে পা ভেজাবেন না, তাতো হয় না। আর যে কেউ পারলেও বাংলার প্রাণের সাথে মিশে থাকা চেতনার ধারক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পারবেন না। তারই প্রমাণ তিনি রাখলেন আজ।

Picture

ছবিটি ফেসবুক থেকে নেওয়া

কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলায় ইনানী বিচে সমুদ্রজলে পা ভেজালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। খালি পায়ে হেঁটে বেড়ালেন বালুকাবেলায়। সেখানে সমুদ্রের মৃদু মৃদু ঢেউ এসে ভিজিয়ে দিল তার পা।

alt

ছবিটি ফেসবুক থেকে নেওয়া

কিছুক্ষণ পরেই ফেসবুকে প্রধানমন্ত্রীর খালি পায়ে হাঁটার বেশ কিছু ছবি ছড়িয়ে পড়ে। বে ওয়াচ রিসোর্টের সামনে সৈকতের বেলাভূমিতে মঞ্চ করে হয় এই অনুষ্ঠানটি। দুপুর সাড়ে ১২টায় অনুষ্ঠান শেষ হলে শেখ হাসিনা সোজা সৈকতে নেমে যান। সেখানে কিছুক্ষণ খালি পায়ে হাঁটেন তিনি, নামেন পানিতেও।

alt

ছবিটি ফেসবুক থেকে নেওয়া

বে ওয়াচ রিসোর্টেই মধ্যাহ্ন ভোজ সারবেন তিনি। এই অনুষ্ঠানে বক্তব্যে শেখ হাসিনা বাবা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে প্রথম সমুদ্র দেখার অভিজ্ঞতার কথা জানান।

alt

ছবিটি ফেসবুক থেকে নেওয়া

ইনানীর সঙ্গে জড়িয়ে আছে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিও।  অনুষ্ঠানের বক্তব্যে শেখ হাসিনা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে শৈশবে সমুদ্র দেখার অভিজ্ঞতার কথা জানান। ১৯৫৮ সালে সামরিক শাসনামলে অরণ্যঘেরা ইনানীর চেনছড়ি গ্রামে বেশ কিছু দিন ছিলেন জাতির জনক।

alt

বাংলাদেশের প্রধান পর্যটন শহর কক্সবাজারকে আরও আকর্ষণীয়ভাবে গড়ে তোলার কথাও বলেন শেখ হাসিনা। সকালে বিমানের বোয়িং উড়োজাহাজ মেঘদূত এ কক্সবাজার নামার পর ইনানী সৈকতে যান প্রধানমন্ত্রী। এর মধ্য দিয়ে সেখানে সুপরিসর বিমান চলাচল শুরু হলো।


মাষ্টার আনোয়ারুল হক এর মৃত্যুতে আ স ম আবদুর রব এর শোক

রবিবার, ২৩ জুলাই ২০১৭

বাপ্ নিউজ : বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ লক্ষীপুর জেলা কমান্ডার, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল - জে এস ডি লক্ষীপুর জেলা শাখা'র সাবেক সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মাষ্টার আনোয়ারুল হক সাহেব ২০ শে জুলাই রাত ১০.৫০ মি: ইন্তেকাল করেন। ইন্নালিল্লাহে....রাজেউন।

মরহুমের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন স্বাধীনতার পতাকা উত্তোলক, জে এস ডি'র সভাপতি আ স ম আবদুর রব, সাধারন সম্পাদক আবদুল মালেক রতন, লক্ষীপুর জেলা জে এস ডি'র সভাপতি অধ্যক্ষ মনছুরুল হক, কার্যকরী সভাপতি অধ্যক্ষ আবদুল মোতালেব ও সাধারন সম্পাদক এড. সৈয়দ বেলায়েত হোসেন বেলাল প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।


ভারতে বঙ্গবন্ধু সড়কে হাসি মুখে প্রধানমন্ত্রী

শনিবার, ০৬ মে ২০১৭

আয়েশা আকতার রুবী,বাপসনিঊজ:জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লিতে একটি সড়কের নামকরণ করা হয়েছে। বাবার নামের সেই সড়কে গিয়ে ছবি তুলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এমনই একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করেছেন প্রধানমন্ত্রীপুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়।

Picture

৫ মে শুক্রবার সন্ধ্যা পৌনে সাতটার দিকে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় ছবিটি পোস্ট করেন। তবে ছবিটি কবে তোলা সে ব্যাপারে কোনো কিছু জানাননি তিনি। ছবিতে দেখা গেছে, প্রধানমন্ত্রী সেই সড়কের নামফলকের সামনে দাঁড়িয়ে রয়েছেন।

alt

উল্লেখ্য,  গত ৮ এপ্রিল দিল্লির প্রাণকেন্দ্রে শঙ্কর রোড-মন্দির মার্গ ট্রাফিক চত্বর থেকে রাম মনোহর লোহিয়া হাসপাতালের সামনে মাদার তেরেসা ক্রিসেন্ট পর্যন্ত সড়কটির নামকরণ করা হয় ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব লেন’। এর আগে এ সড়কটির নাম ছিল পার্ক স্ট্রিট।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফরের প্রাক্কালে দুই দেশের মধ্যে বন্ধুত্বের নিদর্শন হিসেবে এই উদ্যোগ নেয় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। নতুন এই নামফলকটি অগণিত ভারতীয় ও বাংলাদেশির আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়।