Slideshows

http://www.bostonbanglanews.com/index.php/components/components/com_gk3_photoslide/thumbs_big/605744Finding_Immigrant____SaKiL___0.jpg

কুইন্স ফ্যামিলি কোর্টে অভিবাসী

হাকিকুল ইসলাম খোকন/বাপ্‌স নিউজ/প্রবাসী নিউজ ঃ বষ্টনবাংলা নিউজ ঃ দ্যা ইন্টারফেইস সেন্টার অব নিউইয়র্ক ও আইনী সহায়তা সংগঠন নিউইয়র্ক এর উদ্যোগে গত ২৪ অক্টোবর বৃহস্পতিবার সকাল ৯ See details

ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার
ব্যানার

পরিচালনা পরিষদ 

সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি

ওসমান গনি
 

প্রধান সম্পাদক

হাকিকুল ইসলাম খোকন
 

সম্পাদক

সুহাস বড়ুয়া হাসু
 

সহযোগী সম্পাদক

আয়েশা আকতার রুবী

যুক্তরাষ্ট্রের খবর

কংগ্রেসম্যান পিটার কিং রাহিঙ্গা গণহত্যার নিন্দা জানালেন

শনিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭

বাপ্ নিউজ : নিউইয়র্ক থেকে : নিউইয়র্ক থেকে নির্বাচিত রিপাবলিকান কংগ্রেসম্যান পিটার কিং মায়ানমারে রোহিঙ্গা গণহত্যাকে বর্বরোচিত অ্যখ্যায়িত করে বলেন. বিষয়টি আমেরিকা মেনে নিতে পারে না। আমি আং সান সূচির প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি এভাবে মানুষ হতা বন্ধ বন্ধ করুন। ইউএস কংগ্রেসের শক্তিশালী সদস্য পিটার কিং কংগ্রেসে হোমল্যান্ড সিকিউরিটি কমিটির সদস্য এবং কাউন্টার ইন্টেলিজেন্স সাব কমিচির চেয়ারম্যানও।

গত শুক্রবার নিউইয়র্কে লং আইল্যান্ডে তার কংগ্রেসনাল অফিসে বাংলাদেশী কমিউনিটির বিশিষ্টজনদের সাথে স্যেজস্য সাক্ষাতে বাংরাদেশের চলমান সন্ত্রাস রিবোধী লড়াইয়ের প্রশংসা করেন। ইমলামী মৌলবাদের বিরুদ্ধে শেখ হাসিনা সরকারের অবস্তানের প্রশংসা করে কংগ্রেসম্যান কিং বলেন, সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের লড়াইয়ে আমেরিকা সব সময পাশে রয়েছে।

Picture

জাতিসংঘে ভাষন দিতে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিউইয়র্কে আসলে তার সাথে জাতিসংঘে যুক্তরাষ্ট্রের স্থায়ী প্রতিনিধি নিকি হ্যালিকে সাক্ষাৎ করারও পরামর্শ দেন নিউইয়র্ক ডিস্ট্রিক্ট দুই থেকে নির্বাচিত রিপাবলিকান কংগ্রেসম্যান পিটার কিং।

বাংলাদেশী নেতৃবৃন্দকে আশ্বস্ত করে কংগ্রেসম্যান পিটার কিং বলেন, আগামী বছরের শুরুর দিকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সাথে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাক্ষাতের ব্যাপারে তিনি সব রকম উদ্যোগ নিবেন।

বাংলাদেশী কমিউনিটিতে দীর্ঘদিন ধরে রিপাবলিকান পার্টিকে সংগঠিত করে আসা মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মেরাজের নেতৃত্বে প্রতিনিধি দলটি কংগ্রেসম্যান পিটার কি কে সব সময়ে বাংরাদেশী কমিউিনিটি ও বাংলাদেশের পাশে থাকার জন্য ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। প্রতিনিধি দলে অন্যান্যের মধ্যে আরো ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা মহসিন আলী, তানভির মেরাজ প্রমূখ।


নিউইয়র্কে বাংলাদেশী যুবক মারুফ বিল্লাহ’র আত্মহত্যা

শনিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭

বাপ্ নিউজ : নিউইয়র্ক (যুক্তরাষ্ট্র) থেকে : সিটির উডসাইডে বসবাসকারী মারুফ বিল্লাহ (২৮) নামের এক বাংলাদেশী যুবক এই সপ্তাহে আত্মহত্যা করেছেন। গত সোমবার (১৮) তার কক্ষ থেকে মারুফের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। তবে কবে তিনি আত্মহত্যা করেন বলে তা জানা জায়নি। মারুফের মরদেহ কুইন্স হসপিটাল মর্গে রাখা হয়েছে। তার মা-বাবা এবং এক ভাই ও এক বোন ঢাকায় বসবাস করেনে বলে জানা গেছে।

বিভিন্ন সূত্রে পাওয়া খবরে জানা গেছে, সুদর্শন মারুফ বিল্লাহ উন্নত জীবনের আশায় দীর্ঘ পথ পেরিয়ে প্রায় সাড়ে তিন বছর আগে স্বপ্নের অমেরিকায় আসেন। তিনি বিগত ৬/৭ মাস ধরে নিউইয়র্কের উডসাইড এলাকায় বাংলাদেশী মালিকানাধীন একটি প্রাইভেট হাউজের বেসমেন্টে ভাড়া থাকতেন এবং ইয়েলো ক্যাব চালাতেন। বাড়ীর মালিক মোশাররফ হোসেন ২০ সেপ্টেম্বর বুধবার ইউএনএ প্রতিনিধিকে জানান, কয়েকদিন ধরে মারুফ বিল্লাহর সাড়া-শব্দ না পেয়ে গত ১৮ সেপ্টেম্বর সোমবার তার খোঁজ নিতে গেলে ভিতর থেকে দরজা বন্ধ দেখে এবং বেসমেন্ট থেকে গন্ধ পেয়ে তিনি তার কাছে থাকা অতিরিক্ত চাবি দিয়ে দরজার তারা খুলে মারুফের কক্ষে ঘিয়ে তাকে ঝুলন্ত ফাঁসি অবস্থায় দেখতে পান। সাথে সাথে তিনি পুলিশ কল করলে নিউইয়র্ক সিটি পুলিশ এসে মারুফ বিল্লাহর মরদেহ নিয়ে যায়। বর্তমানে মারুফের মরদেহ কুইন্স সেন্টার মর্গে রয়েছে।

Picture

এদিকে নিহত মারুফের পরিচিতজন সূত্রে জানা গেছে, মারুফ মানসিকভাবে বিপর্যন্ত হয়ে আতœহত্যার পথ বেছে নিয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। গত কিছুদিন ধরে ঢাকায় তার প্রেমিকার সাথে মারুফের মানসিক দ্বন্দ্ব চলছিলো বলে একটি সূত্র জানায়।

অপরদিকে মারুফ বিল্লাহ’র কোন নিকটাত্বীয় নিউইয়র্কে না থাকায় কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ তার মরদেহ কি করবেন তা নিয়ে বিপাকে পড়েছেন। তার মরদেহ ঢাকায় পাঠাতে ৪/৫ হাজার ডলার অর্থেরও প্রয়োজন বলে এবং এজন্য কমিউনিটির সহযোগিতা দরকার বলে তারা জানান। পাশাপাশি ঢাকায় মারুফের পরিবারের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা চলছে বলে সর্বশেষ খবরে জানা গেছে।


জয় বললেন ‘মাহাথির তো আমাদের সামনেই’

বৃহস্পতিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭

হাকিকুল ইসলাম খোকন,বাপসনিউজ: নিউইয়র্ক থেকে : প্রধানমন্ত্রীর ছেলে ও তথ্যপ্রযুক্তি-বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় নিউইয়র্কে প্রবাসীদের এক সমাবেশে বলেছেন, ‘প্রযুক্তি খাতে বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা এখন বিশ্বের মধ্যে দ্বিতীয়। বাংলাদেশে এখন খাদ্যের অভাব নেই, বিদ্যুতের অভাব নেই। আমরা এখন পাশের দেশের (রোহিঙ্গা)নাগরিকদের সাহায্য করার কথা গর্বের সঙ্গে বলতে পারি।’

নিউইয়র্কের সমাবেশে বক্তৃতা করছেন সজীব ওয়াজেদ জয়। ছবি-বাপসনিউজ।

জয় উল্লেখ করেন, ‘মালয়েশিয়াকে আজকের পর্যায়ে আনতে সে দেশের মানুষ মাহাথির মোহাম্মদকে ২০ বছর ক্ষমতায় রেখেছিলেন। ২০১৪ সালের আগের নির্বাচনে অনেকে জিজ্ঞাসা করেছিলেন যে, আমাদেরও একজন মাহাথির দরকার। আমি এখন গর্বভরে সকলকে জানিয়ে দেই যে, আমাদের মাহাথিরতো (তার মা শেখ হাসিনার প্রতি ইঙ্গিত করে) আমাদের সামনেই আছেন।’ এ সময় উপস্থিত প্রবাসীরা বিপুল করতালিতে মেতে উঠেন এবং যুবলীগ-ছাত্রলীগের কর্মীরা স্লোগানে স্লোগানে শেখ হাসিনাকে অভিবাদন জানান। ‘বারবার দরকার শেখ হাসিনার সরকার’-স্লোগান ধরেন দলমত নির্বিশেষে উপস্থিত সকলে। ‘নানা বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বাঙালি স্বাধীনতা পেয়েছে, মা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ সমৃদ্ধির পথে এগুচ্ছে এবং তার (জয়) উদ্ভাবিত ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ থিউরিতে বাংলাদেশ সময়ের সাথে পাল্লা দিতে সক্ষম হচ্ছে’-উল্লেখ করেন দর্শকসারির অনেক সুধী জন।


প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নাগরিক-গণসংবর্ধনা প্রদানের এ সমাবেশ হয় ১৯ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার রাতে। বিশ্বখ্যাত টাইমস স্কোয়ারে ম্যারিয়ট মারকুইজ হোটেলের বলরুমের এ সমাবেশে জয় ছিলেন প্রধান বক্তা। তবে তিনি বক্তব্য দিয়েছেন খুবই স্বল্প সময় এবং সংক্ষেপেই অনেক কথা বলেছেন তার নানার ভঙ্গিতে। জয় বলেছেন, ‘বাংলাদেশ বিশ্বের বিস্ময়, এটি আন্তর্জাতিক ফোরামে এলেই অনুধাবন করা যায়। কীভাবে একটি দেশ এগিয়ে চলছে এবং এই অগ্রগতির মিছিলে সারাদেশের মানুষ একিভ’ত হয়েছেন, তার উদাহরণে পরিণত হয়েছে আমাদের বাংলাদেশ। তাই, আওয়ামী লীগকে আবারো ক্ষমতায় বসাতে দলীয় নেতা-কর্মীদের সর্বোচ্চ ত্যাগের মানসিকতা নিয়ে কাজ করতে হবে। প্রবাসীদেরকেও নিজ নিজ এলাকার সাথে যোগাযোগ বাড়াতে হবে।’


বাংলাদেশে জামায়াতে ইসলামী তৎপর হতে না পারলেও যুক্তরাষ্ট্রে পারছে

শনিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭

বাপ্ নিউজ : গত সপ্তাহে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল আটলান্টিক সিটি আলহেরা মসজিদের মুসল্লীদের ঈদ পূর্নমিলনী ও মাসিক ইসলামিক আলোচনা অনুষ্ঠান। মামলায় জর্জরিত আটলান্টিক সিটি আলহেরা মসজিদের মুসল্লীরা মামলার কারনে আলহেরা মসজিদে ঈদ পূর্নমিলনী ও মাসিক ইসলামিক আলোচনা অনুষ্ঠান করতে না পেরে সিটির বিভিন্ন স্থানে আয়োজন করছেন ঈদ পূর্নমিলনী ও মাসিক ইসলামিক আলোচনা অনুষ্ঠান। যুক্তরাষ্ট্রে ইসলাম ধর্ম প্রচার এবং ইসলামের সঠিক বার্তা বিভিন্ন ধর্মের কাছে পৌছানোর প্রত্যয় নিয়ে বাংলাদেশের জামায়াতে ইসলামির যুক্তরাষ্ট্র ভার্ষন মুনা সংগঠনটি প্রতিষ্ঠিত হলেও বর্তমানে আটলন্টিক সিটি, প্যানসেলভেনিয়া, মেরিল্যান্ড এবং নিউইর্য়কে মসজিদ দখলের কাজে সংগঠনের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। তোয়াক্কা করছে না যাদের ঘাম জড়ানো পরিশ্রমে মসজিদ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে তাদেরকে। স্থানীয় কিছু সহজ সরল বাংলাদেশীদেরকে হাত করে ঠুকে দিচ্ছে মামলার পর মামলা।বাংলাদেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর যথোচিত পদক্ষেপের কারনে বাংলাদেশের জামায়াতে ইসলামী নেতৃবৃন্দ সংগঠিত হতে না পারলেও তাদের পেতাত্না সংগঠনটি সাধারন মুসল্লীদের মতামতকে ভুলুন্ঠিত করে ইসলামিক দেশগুলো থেকে পাওয়া অনুদান ধর্ম প্রচারে ব্যবহার না করে মামলার খরছ হিসাবে ব্যবহার করছে।আটলান্টিক সিটিতে তাদের এই অযোচিত কার্যক্রম থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য ইতিমধ্যে স্থানীয় মুসল্লীদের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়ে গেল বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব আটলান্টিক কাউন্টির সভাপতি সেলিম সুলতানের বাসভবনে। আটলান্টিক সিটির বিভিন্ন রাজনৈতিক এবং সামাজিক সংগঠনের প্রতিনিধিরা ইতিমধ্যে আটলান্টিক সিটি আলহেরা মসজিদকে মুনা মুক্ত করার জন্য তাদের সংকল্প ব্যক্ত করছেন। তবে অতীতের মত স্থানীয় রাজনীতিকে ইস্যু করে গুটি কয়েক ব্যক্তিবর্গ মুনার নেতৃবৃন্দকে সহযোগিতা করে যাচ্ছন।আটলান্টিক সিটির আলহেরা মসজিদের মুসল্লীরা অনতি বিলম্বে মুনার দখলদারিত্ব থেকে মুক্তি চায় এবং মুসল্লীদের ভোটের মাধ্যমে নির্বাচিত কমিটির প্রতিনিধিত্ব চায়।


লংবীচ কাইট ফেষ্টিভ্যাল'২০১৭ অায়োজিত।। আত্মতৃপ্তি নিয়ে বাড়ী ফেরা

বৃহস্পতিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭

বাপ্ নিউজ : লস অ্যাঞ্জেলেস থেকে : সাড়া পৃথিবীতে বাঙ্গালী জাতী যেন তার ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির চাদর দিয়ে নিজেদের মর্যাদায় টিকে আছে। বিদেশের মাটিতেও তারা তাদের সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য ভুলেনি। তাইতো প্রতি বছরই লস্ এঞ্জেলেসের প্রবাসী বাঙ্গালীরাও মেতে উঠে নিজেদের সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য নিয়ে। পালন করে বিভিন্ন উৎসবগুলো।

Picture

এমনিভাবে গত ১৭ই সেপ্টেম্বর রোজ রবিবার প্রশান্ত মহাসাগরের তীরে লংবীচে অনুষ্ঠিত হয় ’লংবীচ কাইট ফেষ্টিভ্যাল’২০১৭। লংবীচ কাইট ফেষ্টিভ্যালের প্রধান উপদেষ্ঠামন্ডলী, কমিটি সদস্যদের পরিশ্রমে প্রবাসী বাঙ্গালীদের এ মিলনমেলা অনুষ্ঠিত হয়। 

দুপুর হতেই ছোট ছোট ছেলে-মেয়ে থেকে শুরু করে সকল বয়সী পুরুশ-মহিলাদের পদচারণায় মুখরিত হতে থাকে লংবীচটি। দুপুর আড়াইটা থেকে তিনটার মধ্যে লাঞ্চপর্ব সেড়ে ফেলা হয়। এরপরই শুরু হয় ছোট ছোট ছেলে-মেয়েদের নিয়ে বিভিন্ন আকর্ষনীয় প্রতিযোগিতা ও খেলাধুলা পর্ব।

প্রথমেই ঘুড়ি চিত্রাংকন প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত হয়। চিত্রাংকন প্রতিযোগীতায় ১ম স্থান অধিকার করে সামিয়া, ২য়-তানু এবং ৩য় স্থান অধিকার করে এঞ্জেলি।

এরপর দড়ি জাম্প প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত হয়। অনূর্ধ ১০ ও এর উপরে দুই ভাগে প্রতিযোগীতা হয়। অনূর্ধ ১০ এ দড়ি জাম্প প্রতিযোগিতায় ১ম স্থান অধিকার করে সারা, ২য় সাফিয়া 

এবং ৩য় স্থান অধিকার করে তানিফা। এরপর দড়ি জাম্প প্রতিযোগীতায় ১০ বছরের উপরে ১ম স্থান অধিকার করে আখিঁ, ২য়-উর্মি এবং ৩য় স্থান অধিকার করে ফাতেমা।

মিউজিক্যাল পিলো প্রতিযোগীতা ছিলো বেশ আকর্ষনীয়! অনূর্ধ ১৮ বছরের ছেলে-মেয়ে প্রতিযোগীদের মধ্যে ১ম স্থান অধিকার করে মালেকা, ২য়- নিহাল এবং ৩য় স্থান অধিকার করে

 হৃদয়। এবং ১৮ বছরের উপরের (ভাবীদের মধ্যে) প্রতিযোগীতায় ১ম স্থান অধিকার করেন মুন্নি, ২য়- তানিয়া এবং ৩য় স্থান অধিকার করে শাখিঁ। প্রত্যকটি প্রতিযোগীতায় ১ম,২য় ও ৩য় স্থান অধিকারকারীদের মাঝে ’লংবীচ কাইট ফেষ্টিভ্যাল কমিটি’র পক্ষ থেকে পুরস্কার বিতরন করা হয়।

এছাড়া অনুষ্ঠানের মূল আকর্ষন ছিলো ঘুড়ি উড়ানো। ছোট বড় সকলেই যেন প্রশান্ত মহাসাগরের আকাশ ছুঁতে চায়। ঘুড়ির কাটাকাটি আর সকলের হর্ষধ্বনিতে পরিবেশ যেন সকলকে অভিভুত করে তোলে। ছোটদের তুলনায় মহিলাদের ঘুড়ি উড়ানোয় বেশ দক্ষতার পরিচয় দেয় যা উপস্থিত সকলকে অবাক করে। এমনকি সন্ধ্যা হয়ে যাওয়ার পরও ঘুড়ি উড়াতে দেখা যায়। 

উল্লেখ্য, প্রতিবছর ’লংবীচ কাইট ফেষ্টিভ্যাল’ আগষ্ট মাসে অনুষ্ঠিত হয়। এবছরই এর ব্যাতিক্রম ঘটে। একই সময়ে লংবীচে স্যান্ড ক্যাসেল অনুষ্ঠিত হওয়ায় এবছর কাইট ফেষ্টিভ্যাল অনুষ্ঠানটি সেপ্টেম্বরে আয়োজন করা হয়। সেপ্টেম্বর হওয়াতে সন্ধ্যা হতেই আবহাওয়া একটু ঠান্ডা অনুভুত হয়। এ কারনে আগামী বছরের ’লংবীচ কাইট ফেষ্ঠিভ্যাল-২০১৮’ আগষ্ট মাসেই আয়োজন করবে বলে ’লংবীচ কাইট ফেষ্টিভ্যাল কমিটি সিদ্ধান্ত নেয়।

এবছরের ‘লংবীচ কাইট ফেষ্টিভ্যাল’এর সার্থকতার জন্য যাদের অক্লান্ত পরিশ্রম ও অবদান রয়েছে তারা হলেন কনভেনর সোহরাব চৌধুরী, কো-কনভেনর আব্দুল আলীম আলমগীর, চেয়ারম্যান জসিম হক, ভাইস চেয়ারম্যান মাহবুব তালুকদার, ফুড ডিস্ট্রিবিউটর আরিফ হোসেন, কোষাদক্ষ টিটু মজুমদার সহ আরও আনেকে।

সর্বপরি পুরো দিনটিই যেন আনন্দঘন ছিলো। রঙ-বে-রঙয়ের ঘুড়ি দিয়ে প্রশান্ত মহাসাগরের আকাশ যেন ছেয়ে যায়! দারুন এক পরিবেশ থেকে  সকলে যেন তৃপ্ত আত্মা নিয়ে বাড়ি 

ফিরে। এবারের লংবীচ কাইট ফেষ্টিভ্যাল অনুষ্ঠানে উপস্থিতি হওয়ার জন্য ’লংবীচ কাইট ফেষ্টিভ্যাল কমিটি’র পক্ষ থেকে আন্তরিক অভিনন্দন প্রদান করা হয়েছে।